Full width home advertisement

বাছাই খবর

প্রযুক্তি পরামর্শ

অ্যাপস

Post Page Advertisement [Top]

‘মাশরাফি ক্যাপ্টেন অব এশিয়া কাপ’

‘মাশরাফি ক্যাপ্টেন অব এশিয়া কাপ’
ক্যারিয়ারের সেরা ইনিংস খেললেন লিটন কুমার দাস। তুলে নিলেন ওয়ানডে ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি। ১১৭ বলে ১২ চার ও দুই ছয়ে করেছেন ১২১ রান। উদ্বোধনী জুটির চমক মেহেদী হাসান মিরাজকে নিয়েই গড়েছেন ১২০ রানের দুর্দান্ত এক জুটি। উদ্বোধনী জুটির এই সাফল্যের দিনেও নিষ্প্রভ থাকেন আগের ম্যাচগুলোতে দলকে পথ দেখানো মিডল অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা।
বিনা উইকেটে ১২০ রান করা বাংলাদেশ বাকি ১০২ রান করতেই হারায় ১০ উইকেট! তাতে নির্ধারিত ৫০ ওভারের আগেই গুটিয়ে যায় বাংলাদেশের ইনিংস। ৯ বল বাকি থাকতে ২২২ রানে অলআউট হয় মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। ২২২ রানের পুঁজি নিয়েও বল হাতে ভারতকে চোখ রাঙিয়েছেন মাশরাফি-মুস্তাফিজ-রুবেলরা।
ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণের জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছে শেষ বল পর্যন্ত। শেষ বলের রোমাঞ্চে তিন উইকেটের জয় তুলে নিয়ে আরও একবার এশিয়া কাপের শিরোপা ঘরে তুলল ভারত। এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের এই লড়াইয়ে ভারত চ্যাম্পিয়ন হলেও ব্যাটে-বলে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স মন জিতে নিয়েছে সবার। তাই তো ফাইনাল শেষে লড়াকু তামিম-সাকিববিহীন বাংলাদেশের প্রশংসায় মেতেছে ক্রিকেট-বিশ্ব।
তাদেরই একজন পাকিস্তানের সাবেক ব্যাটসম্যান ও ধারাভাষ্যকার রমিজ রাজা। বাংলাদেশি সমর্থকদের কাছে নিন্দুক বলে পরিচিত হলেও এশিয়া কাপের ফাইনাল শেষে বাংলাদেশের প্রশংসা না করে থাকতে পারেননি তিনি। এমনকি বাংলাদেশের কাছ থেকে শেখার তাগিদ দিয়েছেন পাকিস্তানকে।
বাংলাদেশেকে চ্যাম্পিয়ন দলের তকমা দিয়ে রমিজ রাজা বলেন, ‘দুইটা সেরা দল ফাইনালে এলো। ভারতকে হারানো কঠিন ছিল। বাংলাদেশ ২২২ রান করেও ভারতকে চাপে রেখেছে। একদম শেষ বল পর্যন্ত খেলা নিয়ে গেছে। চ্যাম্পিয়ন দল এমনই হয়। এভাবে নতুন দল উঠে আসে। আজ যে ফাইনাল ছিল, ফাইনালের মতো ছিল। যে কেউ জিতে যেতে পারত। ভারতকে শেষ পর্যন্ত চাপে রেখেছে বাংলাদেশ। তারপরও ভারত চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।’
বাংলাদেশের সাফল্যের পেছনে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার অবদানও চোখ এড়ায়নি রমিজ রাজার। তাই মাশরাফির প্রশংসা করতেও কার্পণ্য করেননি তিনি, ‘আমার দৃষ্টিতে, মাশরাফি ক্যাপ্টেন অব এশিয়া কাপ। আমি এজন্য বলছি যে, মাশরাফির কাছে সাকিব-তামিমের মতো দুজন বিশ্বসেরা খেলোয়াড় ছিল না। বলতে গেলে অর্ধেক দলই ওরা দুজন। বাকি অর্ধেক নিয়ে সে খেলে গেছে। তারপও সে দলকে টেনে শেষ পর্যন্ত নিয়ে গেল। ভারতকে মোকাবেলা করল।’
বাংলাদেশের কাছে থেকে পাকিস্তানকে শেখার তাগিদ দিয়ে দেশটির সাবেক এই ক্রিকেটার বলেন, ‘ওদের উদ্বোধনী জুটিটা এশিয়া কাপে দুর্দান্ত ছিল। পাকিস্তানকে তো এটা শিখতে হবে। চ্যাম্পিয়ন হতে হবে, এজন্য পাকিস্তানকে অনেক কিছু করতে হবে। অধিনায়কত্ব ঠিক করতে হবে, উদ্বোধনী জুটিও ঠিক করতে হবে। আর স্ট্রাইক বোলার যেমন মুস্তাফিজ আছে, বুমরাহ আছে; ওদের মতো পারফরম্যান্স করতে হবে।’
‘স্পিন ডিপার্টমেন্টে আপনি দেখেন কুলদ্বীপ ছিল, চাহাল এসে উইকেট টু উইকেট লেগ স্পিন করল, ওদের মতো ফিল্ডিং। ভারতের অনেক ভালো ফিল্ডিং ছিল। কিপিং যদি দেখেন, ধোনির কোনো জবাব নেই। এটাই হচ্ছে চ্যাম্পিয়ন দল। এভাবেই পাকিস্তানকে আবার উঠে আসতে হবে। কঠিন কাজ না,’ বলেন রমিজ রাজা।

No comments:

Post a Comment

Bottom Ad [Post Page]