Full width home advertisement

বাছাই খবর

প্রযুক্তি পরামর্শ

অ্যাপস

Post Page Advertisement [Top]

এক কন্যার গল্প ‘হাসিনা: আ ডটার’স টেল’ ট্রেইলার সহ দেখে নিন

এক কন্যার গল্প ‘হাসিনা: আ ডটার’স টেল’ ট্রেইলার সহ দেখে নিন


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭২তম জন্মদিন উপলক্ষে ২৮ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত হয়েছে ‘হাসিনা: আ ডটার’স টেল’ শিরোনামের ডকু-ড্রামার ট্রেলার। ২ মিনিট ৪৮ সেকেন্ড ব্যাপ্তির এই ট্রেলারটি প্রকাশের পর থেকেই আলোচনা শুরু হয়েছে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে। 
ডকু-ড্রামার দৈর্ঘ্য প্রায় ৭০ মিনিট। সেখানে প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও তার পরিবারের সদস্যদের দেখা যাবে। উঠে আসবে শেখ হাসিনার সাধারণ জীবনের বেশ কিছু মুহূর্ত। এটি নির্মাণ করেছেন রেজাউর রহমান খান পিপলু।
এর চিত্রগ্রহণে ছিলেন সাদিক আহমেদ। এই মুহূর্তে চলছে সম্পাদনার কাজ। এটি মুক্তি পাবে অক্টোবরে।

২৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় এক মেইল বার্তায় নির্মাতা প্রিয়.কমকে জানান, গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিআরআই ও অ্যাপলবক্স ফিল্মসের যৌথ প্রচেষ্টায় নির্মিত হয়েছে ডকু-ড্রামা ‘হাসিনা: আ ডটার’স টেল’। দুই বছরের গবেষণা ও তিন বছরের প্রচেষ্টায় এই ডকু-ড্রামা নির্মিত হয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এই ডকু-ড্রামায় শেখ হাসিনার জীবনের বিজয়, বিষাদ ও নৈকট্যের দিকগুলো তুলে ধরা হয়েছে।
এ বিষয়ে নির্মাতার ভাষ্য, ‘শুটিংয়ের সময় এক ধরনের শারীরিক চাপ ছিল, তা চলে গেছে। আমাদের কিছু প্যাচওয়ার্ক বাকি। ৯০ ভাগ কাজ শেষ। মিউজিক, কালার গ্রেডিং চলছে। এর শুটিং গণভবন, ধানমন্ডি ৩২ নম্বর ও গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায়।’
পিপলু বলেন, ‘ছবিতে আমরা দেখব, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মৃত্যুর পর আপা জার্মানি, ব্রাসেলস থেকে শুরু করে দিল্লি-যেখানেই গেছেন, সেখানে আমাদের যেতে হয়েছে। আমি তথ্যচিত্রটাকে এমনভাবে পরিকল্পনা করেছি, তার সঙ্গে শুটিংয়ের ব্যাপারটা দেশেই রেখেছি।’
‘এ কাজটা করার সময় আমি প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কাজ করিনি। একজন সাধারণ শেখ হাসিনা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের কন্যাকেই দেখছি। এর বেশি আর কিছু দেখার দরকার পড়ে নাই। আমি সেই স্বাধীনতা পেয়েছি। বাঁধা-ধরা কোনো নিয়মে কাজটা করা হয়নি।’
নির্মাতা জানান, কলকাতার দেবজ্যোতি মিশ্র ডকু-ড্রামার আবহ সংগীতের কাজ করেছেন।
এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিক্রিয়া প্রসঙ্গে নির্মাতা বলেন, ‘একটা বিষয় কী, আমিও আপার প্রতিক্রিয়ার অপেক্ষায় আছি। আমার মধ্যে বেশ টেনশন কাজ করছে। তবে আপা দেশে থাকলে এতক্ষণে প্রতিক্রিয়া পেতাম। এখন অপেক্ষা ছাড়া আর কোনো উপায় নাই।’
আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা ১৯৪৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছার জ্যেষ্ঠ সন্তান তিনি। ভাই-বোনদের মধ্যে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা ছাড়া কেউই জীবিত নেই।
১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে বঙ্গবন্ধুসহ তার পরিবারের অন্য সদস্যরা ঘাতকদের গুলিতে নিহত হন। ১৯৮১ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আসেন শেখ হাসিনা। তিনি ১৯৭৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক সম্পন্ন করেন তিনি।
শেখ হাসিনার রাজনৈতিক জীবন প্রায় চার দশকেরও বেশি। তিনি ১৯৮৬ থেকে ১৯৯০ ও ১৯৯১-১৯৯৫ পর্যন্ত বিরোধী দলের নেতা এবং ১৯৯৬-২০০১ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮১ সালে থেকে তিনি আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।
‘হাসিনা: আ ডটার’স টেল’-এর ট্রেলার দেখুন নিচের লিংকে।



No comments:

Post a Comment

Bottom Ad [Post Page]