Full width home advertisement

বাছাই খবর

প্রযুক্তি পরামর্শ

অ্যাপস

Post Page Advertisement [Top]

কিংবদন্তি মাশরাফি বিন মর্তুজা ও তাঁর ছেলে সাহেল মর্তুজার জন্মদিন আজ

কিংবদন্তি মাশরাফি বিন মর্তুজা ও তাঁর ছেলে সাহেল মর্তুজার জন্মদিন আজ
আজ ৩৫ তম বসন্তে পা রাখলেন করলেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের আইকন মাশরাফি বিন মর্তুজা। আর দু`টি বসন্ত পার করেছে মাশরাফিপুত্র সাহেল মর্তুজা। আজ ৫ অক্টোবর, পিতা-পুত্রের জন্মদিন। শুভ জন্মদিন মাফরাফি, শুভ জন্মদিন সাহেল। ১৯৮৩ সালের এই দিনে নড়াইলের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের অন্যতম তারকা মাশরাফি বিন মর্তুজা। আর ২০১৪ সালের এই দিনেই ঢাকায় জন্মগ্রহণ করে মাশরাফির ছেলে সাহেল মর্তুজা।
বাংলাদেশ ক্রিকেটের হাতে গোনাদের একজনই আমাদের মাশরাফি বিন মর্তুজা। ১৬ কোটি মানুষের ঐক্যের প্রতীক। যেখানে আওয়ামী লীগ-বিএনপি, আস্তিক-নাস্তিক, ছাত্র-শিক্ষক আর মহল্লার মোড়ের পান দোকানিটিও একই সুতোয় গাঁথা। লাল-সবুজের সেই ক্যাপ্টেন মাশরাফি বিন মুর্তজা, নড়াইলের চিত্রা নদী পাড়ের স্বচ্ছ আলো-বাতাসে বেড়ে ওঠা কৌশিক।
১৬ কোটির স্বপ্ন পূরণে জীবন হাতের মুঠোয় নিয়ে মাঠে নামা সেই `যোদ্ধা`টি ৫ অক্টোবর জন্ম নিয়েছিলেন এই বদ্বীপে। জন্ম চিৎকারে জানিয়ে দিয়েছিলেন, `আমি এসেছি।` তারপরের-টুকু তো ইতিহাস।
কৌশিক চ্যাটার্জি তখন কলকাতার নামী অভিনেতা। দূরদর্শনে তাকে দেখে দেখে ভক্ত বনে গিয়েছিলেন মাশরাফির মা। তাইতো প্রিয় অভিনেতার নামেই ছেলের ডাকনাম রেখেছিলেন ” কৌশিক”। চিত্রা নদীর পাড়ে শৈশবের সেই দিনগুলো দুরন্তপনাতেই কেটেছে। এখনো তাই আছেন তিনি। ক্যাপ্টেনের মা হামিদা মুর্তজা এক আড্ডায় বলেছিলেন, `মাশরাফি ছোটবেলা থেকেই সহজ-সরল একটা ছেলে। এখন আপনারা যেমন দেখছেন ছোটবেলাতেও তেমনই ছিল ও। আমি ওর আচরণে কোনো পরিবর্তন দেখতে পাই না।`
তার মানে এমন সহজ-সরল থাকার ক্লাসটা কিংবদন্তি চিত্রশিল্পী এসএম সুলতানের সেই নড়াইলেই হয়েছিল তার। কিন্তু সময়ের সঙ্গে নাগরিক জীবনের ছোঁয়ায় তো মানুষ বদলে যায়। তিনি বদলালেন না কেন? উত্তরটা সম্ভবত- তিনি কখনো `কী পেলাম আর কী-ই বা না পেলাম` সেই উত্তর খুঁজতে যাননি। শুধু বিলিয়ে গেছেন।
মাঠের ক্রিকেটে জীবনের মানে খুঁজতে যাননি মাশরাফি। এক সাক্ষাৎকারে যেমনটা বলেছিলেন ‘দেখুন, জীবন মানেই ক্রিকেট ম্যাচ নয়। জীবন মানেই আপনি কয়টা উইকেট পেলেন আবার কতো বলে কতো রান করলেন সেই হিসেব নয়। আপনি কত বড় সুপারস্টার হলেন সেটাও কিন্তু বড় কথা নয়। এক পর্যায়ে এসবের কোনো মূল্যই থাকবে না। আমি মনে করি আপনি কাউকে ভালোবাসছেন আবার কেউ আপনাকে ভালোবাসছে- এটাই হলো জীবন।’

No comments:

Post a Comment

Bottom Ad [Post Page]