Full width home advertisement

বাছাই খবর

প্রযুক্তি পরামর্শ

অ্যাপস

Post Page Advertisement [Top]

ডায়াবেটিস কোমা : রোগীদের দুঃস্বপ্ন!

ডায়াবেটিস কোমা : রোগীদের দুঃস্বপ্ন!
ভাবুন তো, আপনার সামনে কেউ একজন হুট করে জ্ঞান হারিয়ে ফেললেন। আপনি বোঝার চেষ্টা করলেন তার সমস্যাটা কী। আর খুব অবাক হয়ে আবিষ্কার করলেন যে, সামনের মানুষটি আর বেঁচে নেই। কেমন লাগবে আপনার? কী করবেন আপনি? 
বছর কয়েক আগে ঠিক এমন এক ঘটনায় উত্তাল হয়ে গিয়েছিল পৃথিবী। মৃত ভেবে সামনের মানুষটিকে কবর পর্যন্ত দিয়ে ফেলেছিলেন প্রেমিক। মজার ব্যাপার হলো, এই মৃত্যু কিন্তু কোনো স্বাভাবিক ব্যাপার ছিল না। পুরো শরীর নিথর হয়ে গেলেও বেঁচে থাকার এই প্রক্রিয়ার নাম ‘ডায়াবেটিক কোমা’। ডায়াবেটিক রোগীদের রোগের সর্বোচ্চ এই পর্যায়টি নিয়ে চলুন আজ জেনে আসা যাক।   
ডায়াবেটিক কোমা- কী এবং কেন?
মানুষের আর দশটা অসুখের মতো একটি হলো ডায়াবেটিক কোমা। এই রোগে অসুস্থ ব্যক্তি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। রক্তে সুগারের পরিমাণ কমে যাওয়া এবং বেড়ে যাওয়া- এ দুটোর কোনো একটি অসম্ভব বেশি পরিমাণে হয়ে গেলে মানুষ ডায়াবেটিক কোমার শিকার হন। রক্তে সুগারের পরিমাণ কমে গেলে শরীরের ফ্যাট ভাঙা শুরু হয়। ফলে কেটন নামক উপাদান উৎপন্ন হয়। রোগী ডায়াবেটিক কোমায় চলে যায়। 
অন্যদিকে, রক্তে সুগার অতিরিক্ত হয়ে গেলে রক্ত ঘন হয়ে যায় এবং সেটি শরীর নিতে পারে না। তৈরি হয় ডায়াবেটিস কোমা। এই অবস্থায় রোগী চারপাশের সবকিছু শুনতে পান, বুঝতে পারেন। তবে কোনো রকম প্রতিক্রিয়া জানাতে পারেন না। অনেকে মৃত বলে ধরে নিলেও এক্ষেত্রে বেঁচে থাকেন রোগী। ডায়াবেটিস এর যদি সঠিকভাবে পরিচর্যা না করা হয় তাহলে ডায়াবেটিক কোমা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তবে হ্যাঁ, সঠিক কিছু ধাপ মেনে চলে এই সমস্যাকে দূরেও রাখা সম্ভব।  
লক্ষণগুলো জেনে নিন- 
ডায়াবেটিক কোমার কবলে আপনি পড়তে পারেন, এমনটা বোঝার জন্য চিকিৎসকের কাছে যাওয়াটা জরুরি নয়। আপনার যদি ডায়াবেটিস থাকে, তাহলে নিজে থেকেই কিছু লক্ষণ দেখে এই ব্যাপারটি বুঝতে পারবেন আপনি। ডায়াবেটিক কোমার লক্ষণগুলো হচ্ছে-
  • প্রচন্ড পিপাসা পাওয়া
  • বারবার প্রস্রাব পাওয়া
  • সর্দি ও বমিভাব
  • অবসাদ
  • নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া
  • পেটব্যথা
  • ফলের গন্ধযুক্ত নিঃশ্বাস
  • হৃদস্পন্দন বেড়ে যাওয়া এবং
  • মুখের ভেতরে শুষ্ক হয়ে যাওয়া ইত্যাদি।
সচেতনতা- 
ডায়াবেটিস কোমায় পাকাপাকিভাবে মস্তিষ্ক ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এছাড়া ঘটতে পারে মৃত্যুও। এই সমস্যা থেকে দূরে থাকতে-
১। নিয়মিত ইনসুলিন গ্রহণ করুন।
২। খাবারের দিকে নজর দিন। সঠিক পরিমাণে এবং সঠিক সময়ে খাবার গ্রহণ করা হচ্ছে কিনা তা নিয়ে সচেতন থাকুন। 
৩। মাদকদ্রব্য গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকুন। 
৪। শারীরিক কোনো অসুস্থতা, সার্জারি ইত্যাদি হলে সে সম্পর্কে বিশেষ যত্ন নিন। কারণ একটু অসতর্কতা থেকেই অনেক বড় ঝামেলা তৈরি হতে পারে। 
৫। কোনো রকম ওষুধ সেবন করার থাকলে সে সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নিন।
৬। চারপাশের মানুষদের আপনার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে জানান। যেন আপনার মধ্যে ডায়াবেটিস কোমার কোন চিহ্ন দেখলে তারা দ্রুত ব্যবস্থা নেয়।
৭। নিয়মিত রক্তের গ্লুকোজের পরিমাণ মাপুন। এতে করে খুব সহজেই নিজের শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে সচেতন থাকতে পারবেন আপনি।
৮। অসুস্থ হয়ে পড়লে সাথে সাথে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য কিছু প্রাথমিক জরুরি জিনিস হাতের কাছেই রাখুন।
৯। নিজের সাথে অসুস্থতার কোনো চিহ্ন, যেমন আইডি কার্ড রাখুন। এতে করে আপনি সাহায্য পাবেন দ্রুত ও বড় রকমের সমস্যা থেকে দূরে থাকবেন।
চিকিৎসকের কাছে কখন যাবেন?
ডায়াবেটিক কোমা দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার খুব বেশি আগে থেকে সমস্যা নিয়ে সচেতন হওয়াটা কঠিন। তবে যতটা দেরিই হোক না কেন, যদি উপরের লক্ষণগুলো মিলে যায় এবং আপনি জ্ঞান হারাচ্ছেনে এমন বোধ করেন, সেক্ষেত্রে দ্রুত চিকিৎসককে জানান। ফোন কিংবা পাশের মানুষ- জ্ঞান হারানোর আগে যতটা সম্ভব সবাইকে জানানোর চেষ্টা করুন। 
সূত্র : মায়ো ক্লিনিক

No comments:

Post a Comment

Bottom Ad [Post Page]