Full width home advertisement

বাছাই খবর

প্রযুক্তি পরামর্শ

অ্যাপস

Post Page Advertisement [Top]

২০০ রোগের প্রাথমিক লক্ষণ : মুখে ঘা

২০০ রোগের প্রাথমিক লক্ষণ : মুখে ঘা
মুখে ঘা হওয়াকে বেশিরভাগ মানুষই ছোটখাটো স্বাস্থ্য সমস্যা মনে করেন। কী আর এমন হবে ভেবে এড়িয়ে যান অনেকেই। তবে জানলে হয়ত অবাক হবেন আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান অনুযায়ী, প্রায় ২০০ রোগের প্রাথমিক লক্ষণ এই মুখের অভ্যন্তরীণ ঘা। মরণব্যধি এইডস থেকে শুরু করে ক্যানসার, হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, এমনকি গর্ভে থাকা শিশুর শরীরে বাঁধা অনেক রোগেরই প্রাথমিক লক্ষণ প্রকাশ পায় মুখ গহ্বরে হওয়া ঘা থেকে। 
মুখে ঘা হওয়ার প্রাথমিক লক্ষণ হল মুখের ভেতরের মাংসে কিংবা জিহ্বায় ঘা হওয়া, ব্যথা করা, কিছু খেতে গেলে জ্বলা ইত্যাদি। অনেকের আবার মুখে ঘা হলে মুখ ফুলে যায়, এমনকি পুঁজ বের হওয়ার মতোও ঘটনা ঘটে। 
কী কারণে মুখে ঘা হয়? 
বিভিন্ন কারণে মুখে ঘা হতে পারে। সাধারণত মুখের ভেতরের অংশ বা জিভের কোনো অংশ কেটে বা ছিঁড়ে গেলে ঘা হতে পারে। আবার শক্ত ব্রাশ দিয়ে দাঁত পরিষ্কার করতে গেলেও এমন সমস্যায় পড়েন অনেকে। খুব গরম পানীয় পান করতে গেলেও ঘা হতে পারে। অনেক সময়, কিছু চিবিয়ে খাওয়ার সময় গালে কামড় লেগে এ সমস্যা হতে পারে। 
মুখে ঘা হওয়ার এই কারণগুলো একদমই সাধারণ। তবে এগুলো ছাড়াও নানা কারণে মুখে ঘা হতে পারে। বিভিন্ন জটিল রোগের প্রাথমিক লক্ষণই কিন্তু এই ঘা। 
ডায়াবেটিস বা হৃদরোগ রয়েছে এমন ব্যক্তি যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম এবং দীর্ঘদিন ধরে ওষুধ সেবন করছেন, তাদের মুখে এক ধরণের জীবাণু বাড়তে পারে। সাধারণত, ভিটামিন বি-১২ কিংবা আয়রনের অভাবে এই সমস্যা হয়ে থাকে। 
সচেতন হোন আজই- 
সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা যায়, যারা ধূমপান করেন এবং জর্দা দিয়ে পান খান তাদের মুখে ঘা হওয়ার প্রবণতা বেশি থাকে। সেই সঙ্গে বৃদ্ধি পায় মুখে ক্যানসার হওয়ার প্রবণতাও। মূলত আমাদের মুখের অভ্যন্তরীণ অংশ বেশ স্পর্শকাতর। তাই মুখে ঘা হলে নিজে নিজে কোনো ওষুধ ব্যবহার না করে বরং অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। 
সাধারণ ঘা হলে সপ্তাহখানেকের মধ্যেই তা সেরে যাওয়ার কথা। তবে চিকিৎসার পরও দুই/তিন সপ্তাহেও যদি তা স্থায়ী হয় তবে অবশ্যই বায়োপসি বা মাংসের টিস্যু পরীক্ষা করাতে হবে। কেননা, মুখের ভেতর হওয়া বেশ কিছু ঘা বা সাদা ক্ষতকে বিজ্ঞানীরা প্রি-ক্যানসার লিশন বা ক্যানসারের পূর্বাবস্থার ক্ষত বলে দাবি করেন। 
প্রতিরোধের উপায়- 
মুখের ঘা প্রতিরোধে নিয়মিত দাঁত ও মুখের যত্ন নিন। বেশি করে ফল, শাকসবজি, দুধ, মাছ, চর্বি ছাড়া মাংস খাওয়ার অভ্যাস করুন। এসব খাবারে প্রচুর পরিমাণ জিঙ্ক, ভিটামিন ও আয়রন থাকায় তা মুখের ঘা সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। এর পাশাপাশি নিয়মিত মাউথ ওয়াশ ব্যবহারের অভ্যাস করুন। 

No comments:

Post a Comment

Bottom Ad [Post Page]