Full width home advertisement

বাছাই খবর

প্রযুক্তি পরামর্শ

অ্যাপস

Post Page Advertisement [Top]

কম উচ্চতার মানুষ বেশি রাগী হয়!

কম উচ্চতার মানুষ বেশি রাগী হয়!
বন্ধুদের মধ্যে উচ্চতায় একটু কম শিহাব, তবে রাগের দিক থেকে সবার ওপরে সে। এদিক থেকে ওদিক হলেই হয়ে যায় অগ্নিমূর্তি। বন্ধুরা তাই মজা করেই বলে, “ছোট মরিচের ঝাঁঝ বেশি”। তা দেখতে ছোট মরিচের ঝাঁঝ বেশি হোক কী কম, উচ্চতায় ছোট মানুষের রাগ কিন্তু সত্যিই বেশি। খোদ গবেষকরাই জানাচ্ছেন এমন কথা। লম্বা মানুষের তুলনায় নাকি খাটো মানুষরা বেশি রাগী ও হিংস্র হয়।
আমেরিকার জর্জিয়ার আটলান্টার সেন্টার ফর ডিজিজ কনট্রোলের গবেষকরা সম্প্রতি সরকারের সহযোগিতায় প্রায় ৬০০ জন পুরুষের ওপর গবেষণা চালিয়েছেন। এদের বয়সসীমা ছিল ১৮ থেকে ৫০ বছর। এই গবেষণায় তাদের স্বভাব, ড্রাগ গ্রহণের সঙ্গে সম্পর্ক, নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা ইত্যাদি বিষয় দেখা হয়েছে।
এতে দেখা যায়, যারা লম্বাদের তুলনায় খাটোদের অপরাধ করার প্রবণতা তিনগুণ বেশি। খাটোরা লম্বা পুরুষদের তুলনায় বেশি হীনমন্যতায় ভুগে থাকেন। নিজের উচ্চতা কম হওয়ার বিষয়টি তাদের মানসিক চাপে রাখে। যার ফলে তাদের মেজাজ খিটখিটে থাকে এবং তারা হিংস্র আচরণ করে।
এর আগেও এ বিষয় নিয়ে গবেষণা করা হয়েছিল। বছর কয়েক আগে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির গবেষকরা ‘শর্ট ম্যান সিনড্রোম’ এর কথা জানিয়েছিলেন। সেখানেও বলা হয়, উচ্চতায় কম পুরুষরা নিজেকে দুর্বল ভেবে থাকেন এবং এই বিষয়টি তাদের মনে গেঁথে গিয়ে মানসিক সমস্যায় রূপ নেয়।
‘শর্ট ম্যান সিনড্রোম’ কে ‘নেপোলিয়ন কমপ্লেক্স’ ও বলা হয়। যদিও নেপোলিয়ন ছিলেন পাঁচ ফিট সাত ইঞ্চি লম্বা। এই উচ্চতাকে অবশ্যই খাটো বলা যায় না।
বর্তমান যুগে মানুষ নিজের দৃশ্যমান সৌন্দর্য নিয়ে একটু বেশিই সচেতন থাকে। আর তাই কম উচ্চতার বিষয়টি বেশিরভাগ মানুষের ক্ষেত্রে মানসিক যন্ত্রণার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তবে, খাটো হলেই যে শান্ত না হয়ে রাগী আর রগচটা হবেন তা নিশ্চিত করে বলা যায় না। এর ব্যতিক্রম অবশ্যই রয়েছে।

No comments:

Post a Comment

Bottom Ad [Post Page]