Full width home advertisement

বাছাই খবর

প্রযুক্তি পরামর্শ

অ্যাপস

Post Page Advertisement [Top]

একটি গ্রুপ তৈরি করে ফেসবুক থেকে কিভাবে আয় করবেন। ১ম পর্ব

একটি  গ্রুপ  তৈরি করে ফেসবুক থেকে কিভাবে আয় করবেন। ১ম পর্ব

আপনি যদি এমন একজন উদ্যোক্তা হন যিনি সম্ভাব্য কাষ্টমারের একটি দল তৈরি করতে চান, তাহলে ফেসবুক গ্রুপগুলো আপনার রাডারে থাকা প্রয়োজন। বিশেষ করে যদি আপনি প্রফিট বাড়ানোর উপায় খুঁজেন অথবা সস্তায় একটি প্যাসিভ ইনকাম স্ট্রিম তৈরি করতে চান। বিস্তারিত জানতে এখন আগ্রহ পাচ্ছেন নিশ্চয়?
যদি এখুনো আগ্রহ না পান তাহলে জানুন ফেসবুক গ্রুপগুলো থেকে আরো কি কি সেরা কিছু পেতে পারেন আপনিঃ
  1. সম্ভাব্য কাষ্টমারের একটি দল তৈরি করুন
  2. রিলেশনশিপ এবং ট্রু কমিউনিটি তৈরি করুন
  3. “go to” এক্সপার্ট হোন
  4. আপনার ব্লগে আরও ট্রাফিক পান
  5. আপনার ইমেল তালিকা বৃদ্ধি করুন
  6. নতুন পণ্য / সেবা চালু করুন
  7. হোস্ট প্রশিক্ষণ
  8. সম্ভাব্য নতুন টিম মেমবারদের খুঁজুন
  9. আপনার পণ্য / পরিষেবাগুলি বিক্রি করুন
আমি যদি এখন আপনাকে বলি সারা পৃথিবী জুড়ে অন্তত ১ বিলিয়ন লোক আছেন যারা নিয়মিত ফেসবুক গ্রুপ ব্যবহার করেন, তাহলে নিশ্চয় আপনি আপনার নিজের ফেসবুক গ্রুপ শুরু করতে চাইবেন? তাইনা? আমিও তাই আশা করি!
শুরু করার আগে, সিদ্ধান্ত নিন আপনার গ্রুপটি কী জন্য ব্যবহার করা হবে।
আপনার গ্রুপের সেট আপ শুরু করার আগে, এটা আপনি কেন তৈরি করছেন তা স্থির করা জরুরী।
একটি গ্রুপের মাধ্যমে ব্যবসা সংক্রান্ত সব কাজ হয়ে যাবে এমন চিন্তা থেকে অনেক ব্যবসা মালিকরা গ্রুপ তৈরির ভুল করে থাকে। তারা মনে করেন যে এটি একটি জায়গা যেখানে যোগাযোগের জন্য বিস্তারিত সকল তথ্য কাস্টমাররা খুঁজে পাবে।
ঠিক এই কাজের জন্য ফেসবুক গ্রুপ ব্যবহার করা উচিত নয় (এই কাজের জন্য রয়েছে পেজ)।
সাধারণভাবে বলতে গেলে, আপনার ফেইসবুক গ্রুপটি এমন একটি জায়গা হতে হবে যেখানে আপনার টার্গেট মার্কেটটি আপনার পন্যের সাথে সম্পর্কিত সাধারণ সমস্যা, বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে আলোচনা করতে পারে।
এখানে বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান কিভাবে গ্রুপগুলোকে ব্যবহার করতে পারে তার কিছু উদাহরণ এখানে রয়েছে:
  1. একটি প্লাম্বিং কোম্পানী: একটি DIY প্লামিং গ্রুপ যেখানে মেম্বারগণ তাদের প্লাম্বিং প্রকল্প সম্পর্কে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে পারেন।
  2. একজন লেখক: একটি বই ক্লাব যেখানে মেম্বারগণ তাদের প্রিয় বই আলোচনা করতে পারেন।
  3. একটি পণ্য ভিত্তিক কোম্পানী: একটি গ্রুপ যেখানে ব্যবহারকারীরা প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে পারেন, টিউটোরিয়াল পেতে বা আপনার পণ্য ব্যবহার করে সাহায্য পেতে পারেন।
মনে রাখবেন, আপনার লক্ষ্য কেবল আপনার গ্রুপের মাধ্যমে আপনার ব্যবসার প্রসার ঘটানো নয়। আপনার লক্ষ্য হল আপনার টার্গেট মার্কেটের সাথে সংযোগ স্থাপন এবং আলোচনা করার জন্য একটি ফোরাম গঠন করা এবং নিজেকে কাস্টমারের সামনে একজন বিশেষজ্ঞ হিসাবে উপস্থাপন করা।
আপনি আপনার ব্লগের পোস্টগুলোতে লিঙ্কগুলো শেয়ার করতে, আপনার পছন্দসই  অফারগুলোকে প্রোমোট করতে এবং আপনার নিজস্ব ভিউগুলো শেয়ার করতে সক্ষম  হবেন, যা স্বাভাবিকভাবে আপনার প্রোডাক্ট সেলিংকে লিড দিবে। ফেসবুক গ্রুপ আনি একটু বলবো এই পর্বে।
ফেসবুক গ্রুপ সেট আপ করা একটি সুপার সিম্পল কাজ। যাইহোক, আপনি কি  ধরণের গ্রুপ চান আপনাকে সঠিকভাবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। ফেসবুকে তিনটি প্রধান গ্রুপ রয়েছে: পাবলিক, ক্লোজড এবং সিক্রেট।
এখানে প্রতিটি গ্রুপের সংক্ষিপ্ত ওভারভিউ, এবং কেন আপনি এদের পছন্দ করবেন তার বর্ণনা দেয়া হল।
পাবলিক গ্রুপ
যে কেউ ফেসবুক সার্চের মাধ্যমে আপনার পাবলিক গ্রুপটি খুঁজে পেতে পারে, এবং যে কেউ আপনার গ্রুপে কে কে আছে তা দেখতে পারে। সমস্ত পোস্ট এবং কমেন্টগুলো পাবলিক, যার মানে হল তারা ফেসবুক সার্চের মাধ্যমে অন্যদের নিউজ ফিডে প্রদর্শিত হবে। কেউ যদি গ্রুপে পোস্ট করতে বা মন্তব্য করতে চায় তবে তাদের অবশ্যই গ্রুপে যোগ দিতে হবে।
যদি গ্রুপে প্রকাশিত আপনার আলোচনা কোন গোপনীয় বিষয়ে না হয় এবং আপনার প্রধান ফোকাস যদি কোন কিছু প্রদর্শন বা প্রকাশের উপর থেকে থাকে তাহলে পাবলিক গ্রুপ আপনার জন্য একটি আদর্শ জায়গা। পাবলিক গ্রুপের একটি প্রধান সুবিধা হল আপনার আপনার পোস্ট সার্চে এবং আপনার মেম্বারদের নিউজ ফিডে দেখানো হবে, যার মানে হল আপনার গ্রুপটি খুব দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে। যাইহোক, সচেতন থাকুন কারন বৃহত্তর পাবলিক গ্রুপগুলোকে প্রায়ই স্প্যামাররা টার্গেট করে এবং এই ধরনের গ্রুপ মেইনটেন করার জন্যেও অনেক কাজ করতে হতে পারে।
ক্লোজড গ্রুপ
যে কেউ আপনার গ্রুপটি ফেসবুক সার্চের মাধ্যমে খুঁজে পেতে পারে, এবং যে কেউ আপনার গ্রুপে কে কে আছে তা দেখতে পারে। যাইহোক, শুধুমাত্র মেম্বাররা গ্রুপ দেখতে, পোস্ট করতে বা মন্তব্য করতে পারে।
অনেক সময় আমি কোনও অফিসিয়াল পরিসংখ্যান খুঁজে পাই না, এই কারনে আমার অনুমান হচ্ছে যে ফেসবুকে বেশিরভাগ গ্রুপগুলোই ক্লোজড গ্রুপ। তারা আপনাকে ফেসবুক সার্চে খুঁজে পাওয়ার সুবিধা দেয়, কিন্তু গ্রুপের মধ্যে হওয়া সব আলোচনা গোপন রাখা হয়। এটি সাধারণত ব্যবসার মালিকদের জন্য একটি সর্বোত্তম বিকল্প যারা কাস্টোমার বা ক্লায়েন্টদের জন্য প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করার বা সাপোর্ট পাওয়ার একটি নিরাপদ জায়গা তৈরি করতে চান।
সিক্রেট গ্রুপ
সিক্রেট গ্রুপগুলো ফেসবুক সার্চে দেখা যাবে না এবং এই গ্রুপে কে কে আছে কেউ তা দেখতে পারবে না। আসলে এই গ্রুপগুলো এতটাই গোপনীয় যে যারা এই গ্রুপে নেই এমন কারো কাছে গ্রুপের একটি লিঙ্কও পাঠাতে পারবেন না! আপনার গ্রুপটি বৃদ্ধি করার জন্য, আপনাকে নিজেকে নিজের মেম্বারদের এড করতে হবে।
আপনি যদি আপনার মেম্বারদের জন্য একটি হাই লেবেলের গোপনীয়তা বজায় রাখতে চান তবে এটি একটি ভাল বিকল্প হতে পারে (যেমন, যদি আপনার গ্রুপের সাবজেক্ট অত্যন্ত সেনসিটিভ হয়), অথবা আপনি যদি চান অন্যরা আপনার গ্রুপে যোগদান করার জন্য অনুরোধ করতে না পারে তাহলে সিক্রেট গ্রুপ আপনার সঠিক পছন্দ হতে পারে।
১ম পর্বের আলোচনা এই পর্যন্তই। আপনার জন্য কোন গ্রুপটি উপযুক্ত তা এখুনি ঠিক করে নিন। ২য় পর্বে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করব কিভাবে আপনার পছন্দের ফেসবুক গ্রুপ ওপেন করবেন তা নিয়ে। আমি খুব শীঘ্রয় আবারো হাজির হব। ততক্ষন পর্যন্ত আমাদের সাথেই থাকুন, ধন্যবাদ।

No comments:

Post a Comment

Bottom Ad [Post Page]