Full width home advertisement

বাছাই খবর

প্রযুক্তি পরামর্শ

অ্যাপস

Post Page Advertisement [Top]

ফেসবুকে দৈনিক কতটা সময় দিচ্ছেন আপনি?

ফেসবুকে দৈনিক কতটা সময় দিচ্ছেন আপনি?
ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, টুইটারে দিনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় ব্যয় করেন অনেকে।  একটি অ্যাপ থেকে আরেকটি অ্যাপে যাতায়াত করতে করতেই দিন শেষ হয়ে যায় তাদের।  অন্যদের জীবনের ঝলমলে সব ছবি, স্ট্যাটাস দেখতে দেখতে মনে হয় আপনি একেবারেই ব্যর্থ। কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ার হাতছানি উপেক্ষা করেও থাকা যায় না। কী করবেন তাহলে?
আপনার জন্য রয়েছে সুসংবাদ। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে একেবারে বের হয়ে যেতে হবে না।  বরং তাতে সময় ব্যয় করাটা কমিয়ে আনুন। গবেষণায় দেখা গেছে, দৈনিক মাত্র আধা ঘণ্টা সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যয় করলে মানসিক স্বাস্থ্য ভালো থাকে।  এই গবেষণা প্রকাশ করছে জার্নাল অব সোশ্যাল অ্যান্ড ক্লিনিক্যাল সাইকোলজি।
ইউনিভার্সিটি অব পেনসিলভেনিয়ার গবেষকরা ১৪৩জন আন্ডারগ্র্যাজুয়েট শিক্ষার্থীর সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের তথ্য সংগ্রহ করেন। তাদের সবার বয়স ছিল ১৮ থেকে ২২ এর মাঝে।  গবেষকরা তাদের নিয়ে বসন্তে একবার, আবার হেমন্তে আরেকবার পরীক্ষা করেন।
গবেষকরা ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম ও স্ন্যাপচ্যাট ব্যবহারের তথ্য নেন।  এসব শিক্ষার্থীর মানসিক স্বাস্থ্যের সাতটি বিষয়ের ওপর জোর দেওয়া হয়, সামাজিক সহায়তা, ‘ফিয়ার অব মিসিং আউট’ বা সোশ্যাল মিডিয়ার কোনো ঘটনা হাতছাড়া হয়ে যাবার ভয়, একাকীত্ব, নিজের কাজে গ্রহণযোগ্যতা, আত্মবিশ্বাস, দুশ্চিন্তা ও বিষণ্ণতা।
গবেষকরা এরপর শিক্ষার্থীদেরকে বিভিন্ন দলে ভাগ করেন ও তিন সপ্তাহ ধরে পরীক্ষা করেন। এক দলকে আগের মতোই সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করতে দেয়া হয়।  আরেক দলকে বলা হয় প্রতিটি অ্যাপ দৈনিক মাত্র ১০ মিনিট ব্যবহার করা যাবে (সব মিলিয়ে ৩০ মিনিট)। এরপর আবার তাদের মানসিক স্বাস্থ্যের পরীক্ষা নেওয়া হয়।
দেখা যায়, যারা দিনে মাত্র ৩০ মিনিট সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যয় করেছে, তাদের মানসিক স্বাস্থ্যে উল্লেখযোগ্য মাত্রায় উন্নতি হয়েছে।  তাদের একাকীত্ব ও বিষণ্ণতা কমে আসে।  গবেষণার লেখক বলেন, ‘সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার কমিয়ে দিলে একাকীত্ব কমে, এটা অনেকটাই অদ্ভুত।’ মূলত সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করলে মনে হয়, অন্যদের জীবন নিজের জীবনের থেকে অনেক ভালো। এ কারণেই সময়টা কমিয়ে আনলে মন ভালো থাকে।
তবে এ গবেষণারও কিছু সীমাবদ্ধতা ছিল। ব্যবহারকারীরা সবাই আইফোন ব্যবহার করে। কারণ এতেই ঠিকভাবে বোঝা যায় কোন অ্যাপটি কত সময় ব্যবহার করা হচ্ছে। এছাড়া ফেসবুক, স্ন্যাপচ্যাট ও ইনস্টাগ্রাম ছাড়া অন্য কোনো সোশ্যাল মিডিয়া তারা ব্যবহার করছিল কিনা, তা দেখা হয়নি।
সূত্র: হাফিংটন পোস্ট

No comments:

Post a Comment

Bottom Ad [Post Page]